Your shopping cart is empty Log in
| About Boi Mela | Customer Service | Contact
 HomeAdvanced SearchNew BooksPublisher List

 Download Free Books
 
 Boi Mela 2012 Books
 
 Download Free Textbooks
 
 English Titles
 
 Top #100 Bestsellers
 
 Authors List
Humayun Ahmed
Qazi Anwar Husain
Imdadul Haq Milon
Muntassir Mamoon
Muhammed Zafar Iqbal
Rakib Hassan
 See all Authors...
 
 Category Listing
Novels
Children
Reference
Poetry
Stories
Biography
Essays
Muktijuddho
History
Science
 See all Categories..
 
 Publisher List
Anannya
Mowla Brothers
Somoy Prokashon
Oitijjhya
Annyaprokash
 See all Publishers...


  Information
Shipping Information
Payment Options
Order Tracking
Privacy & Security
Our Friends
 Help Us

Google
Web Boi Mela


Banglapedia Articles
Atiya Mosque
Bangladesh Atomic Energy Commission
Derai Upazila
Dhamoirhat Upazila
Jabbar, Sheikh Abdul
Patuya Sangit

Web Hosting by Alpha Net

Boi-Mela.com is hosted by Alpha Net's Web Hosting in Bangladesh. Alpha Net is the best Web Hosting company in Bangladesh offering low cost Linux Hosting, ASP.NET Hosting, VPS, & Dedicated Servers for over 16 years.

Are you looking to find a Martial Arts School around you? Try dojos.info. There are over 30 thousand Martial Arts Schools that you can search by location, style, name etc. For Canada, see dojos.ca and dojos.com.au for Australia.

For Martial Arts Schools in UK, try UK's Dojo Directory.

 

 

 


Ekattor Amar Sreshtho Shomoy /
-
Ekattor Amar Sreshtho Shomoy By:Other Book Type: Muktijuddho
  বইটি কিনতে ফোন করুন
0197-2646352
(0197-BOIMELA)
Book Code 11288
Publisher Shahitya Prakash / সাহিত্য প্রকাশ
Book Type Muktijuddho [+]
Published June, 2009
Page 408
Language Bangla
Binding Hardcover
Price Tk. 500.00
   
বইটি বাংলায় দেখুন
Available in Stock
   
Quantity  
DBBL Nexus

These books are for Free!!!

Shanta Poribar By:Muhammed Zafar Iqbal Biggani shofdar ali'r moha moha abishkar By:Muhammed Zafar Iqbal Kishor Uponnash shomogro By:Muhammed Zafar Iqbal Class IV Bangla By:NCTB Authors Class VII Social Science By:NCTB Authors

Shanta Poribar

Biggani shofdar ali'r moha moha abishkar

Kishor Uponnash shomogro

Class IV Bangla

Class VII Social Science
Description:
বইপত্র
প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান
রাশেদুর রহমান | তারিখ: ২১-০৫-২০১০

একাত্তর আমার শ্রেষ্ঠ সময়—
আনোয়ার উল আলম শহীদফেব্রুয়ারি ২০০৯সাহিত্য প্রকাশ, ঢাকাপ্রচ্ছদ: অশোক কর্মকার৪০৭ পৃষ্ঠা ।। ৪০০ টাকা

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ শুধু বাঙালির ইতিহাসেই নয়, পৃথিবীর সমসাময়িক ইতিহাসেও বড় একটি ঘটনা। ১৯৭১ সালের ঘটনাবলি নিয়ে অনেকেই লিখেছেন এবং বলেছেন। স্মৃতিচারণামূলক বইয়ের সংখ্যাও কম নয়। এর সঙ্গে সম্প্রতি যুক্ত হয়েছে নতুন আরও একটি বই—আনোয়ার উল আলম শহীদের একাত্তর আমার শ্রেষ্ঠ সময়।
লেখক আনোয়ার উল আলম শহীদ আমাদের মুক্তিযুদ্ধের একজন প্রত্যক্ষদর্শী, সাক্ষী ও সক্রিয় যোদ্ধা। এর আগে তিনি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, তখন আমাদের জাতীয় ও ছাত্র রাজনীতিতে উত্তাল অবস্থা। সেই সময় পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি ছাত্র-তরুণদের প্রতিবাদী চেতনা কর্মের সক্রিয় সঙ্গী ছিলেন। তাঁর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রত্ব যখন শেষ, তখনই শুরু হয় আমাদের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ।
আনোয়ার উল আলম শহীদ একাত্তরে টাঙ্গাইলের প্রতিরোধে এবং সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন তিনি। পাশাপাশি সাংগঠনিক বহুমাত্রিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাও তিনি পালন করেন। তিনি তাঁর সেই ঘটনাবলি প্রত্যক্ষদর্শীর জবানিতে একাত্তর আমার শ্রেষ্ঠ সময় বইয়ে তুলে ধরেছেন। নামটি দেখে যে কারোরই মনে হওয়া স্বাভাবিক এই বইটি শুধু একাত্তর ঘিরেই। কিন্তু তা নয়, বইটি এক অর্থে তাঁর আত্নজীবনী, যা ১৯৭২ সালে শেষ হয়েছে। এর বিরাট অংশ নিয়ে আছে তার দেখা একাত্তর ও সংশ্লিষ্ট পূর্বাপর ঘটনা।
১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য বাংলাদেশকে কয়েকটি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছিল। টাঙ্গাইল ছিল নয় নম্বর সেক্টরের অধীন। কেন্দ্রীয়ভাবে গঠিত মুক্তিবাহিনী ওইসব সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত থেকে দেশের সর্বত্র যুদ্ধ করে। এই বাহিনী গঠিত হয়েছিল ছাত্র-যুবক, বাঙালি পুলিশ, ইপিআর ও সেনাসদস্য সমন্বয়ে। এর বাইরে দেশের অভ্যন্তরে টাঙ্গাইল, বরিশাল, ফরিদপুরে আলাদাভাবে কয়েকটি বাহিনী গড়ে উঠেছিল। এমন একটি বাহিনীর নাম ছিল কাদেরিয়া বাহিনী। দেশের অভ্যন্তরে গড়ে ওঠা ওই সব বাহিনীর মধ্যে এই বাহিনীই ছিল সবচেয়ে বড়। সীমিত অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তারা সাহসিকতার সঙ্গে টাঙ্গাইলে পাকিস্তান বাহিনীকে মোকাবিলা করে। এত দিন আমাদের জানা ছিল বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকীই এই বাহিনী গঠন করেন এবং তিনিই ছিলেন এর মূল ভূমিকায়।
একাত্তর আমার শ্রেষ্ঠ সময় বই পড়ে এখন জানা গেল আনোয়ার উল আলম শহীদও ছিলেন এই বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। মূলত তাঁরা দুজনই আরও কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে এই বাহিনী গড়ে তোলেন। কাদের সিদ্দিকী মূলত যুদ্ধ সংক্রান্ত কাজেই বেশি ব্যস্ত ছিলেন। অন্যদিকে আনোয়ার উল আলম শহীদের ভূমিকা ছিল ব্যাপক। ফলে তাঁকে বহুমাত্রিক কাজ করতে হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের মাঝামঝি কিছু দিনের জন্য তিনি এই বাহিনীর সামরিক নেতৃত্বও দেন। তাঁর ভাষায়, ‘...কাদের সিদ্দিকী যুদ্ধ পরিচালনায় সাহস ও বীরত্বের পরিচয় দেয়। সেনাবাহিনীর কর্মরত ও প্রাক্তন সেনাদের মধ্যে যারা আমাদের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল, তাদের মধ্যে কাদের সবচেয়ে বেশি যোগ্যতা ও দক্ষতা প্রদর্শন করে। তার নেতৃত্ব-ক্ষমতা ও সাংগঠনিক শক্তি টাঙ্গাইল মুক্তিবাহিনীর সাফল্যে মুখ্য ভূমিকা পালন করে। আগস্ট, সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে কাদেরের অনুপস্থিতিতে আমাকে সামরিক প্রধানের দায়িত্বও পালন করতে হয়।’ পৃষ্ঠা ২৫৪।
১৯৭১ সালে কাদেরিয়া বাহিনী পাকিস্তানিদের কাছে ত্রাস হিসেবে পরিচিত ছিল। এই বাহিনী টাঙ্গাইলের কিছু এলাকা মুক্ত রেখে সেখানে অবস্থান করেই যুদ্ধ করেছে। এবং তাদের তৎপরতার কারণেই ডিসেম্বরের শুরুতে টাঙ্গাইলের বিরাট এলাকা মুক্তাঞ্চলে পরিণত হয়। এর ফলে মিত্রবাহিনীর সৈন্যরা টাঙ্গাইলে সমবেত হয়ে দ্রুত ঢাকায় পৌঁছে যায়।
কাদেরিয়া বাহিনী ও এর নেতা হিসেবে আবদুল কাদের সিদ্দিকীর নাম আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু আনোয়ার উল আলম শহীদের নাম বেশির ভাগেরই অজানা। কাদেরিয়া বাহিনীর কর্মকাণ্ড নিয়ে কাদের সিদ্দিকী নিজেও বই লিখেছেন। কিন্তু একাত্তর আমার শ্রেষ্ঠ সময় বইটি তার থেকে বেশ তফাৎ। কারণ সেই সময়ের অনেক ঘটনা ও তথ্য এই বইটি পড়েই আমরা প্রথম জানতে পারি। এই বইটি সংকীর্ণতা ও একদেশদর্শীতা থেকে কিছুটা মুক্ত। তবে নিজস্ব ভূমিকার অতিরঞ্জন প্রকাশ প্রবণতা কিছুটা হলেও এতে লক্ষণীয়। ঘটনার বিবরণ পরিবেশনার ক্ষেত্রেও শৃঙ্খলা ও বিন্যাসের অভাব আছে। কিছু অপ্রয়োজনীয় বিষয়ের বিস্তারিত বিবরণ বইয়ের কলেবর বৃদ্ধি করেছে।
কোনো বড় ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিবর্গ যদি সে বিষয়ে সাক্ষ্য দেন বা স্মৃতিচারণমূলক কিছু লেখেন তা জাতীয় ইতিহাসের অনন্য সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হয়। তবে প্রশ্ন উঠতে পারে, যাঁরা ঘটনার বিষয়ে সাক্ষ্য দেন বা লেখেন, তাঁরা সবাই কী তা সৎ ও নিরপেক্ষভাবে দেন? অনেকে তাঁর নিজস্ব রাজনৈতিক বিশ্বাস ও আকাঙ্ক্ষায় প্রভাবিত হয়ে সাক্ষ্য দেন বা লেখেন। বিশেষত যাঁরা প্রত্যক্ষভাবে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকেন তাঁদের পক্ষে নৈর্ব্যক্তিক অবস্থান থেকে যথার্থভাবে বিবরণ সম্পর্কে লেখা বা সাক্ষ্য দেওয়া কঠিনই বটে। কারণ নিজের অজ্ঞাতসারে তাঁরা অনেকেই হয়ে পড়েন পক্ষপাত দোষে দুষ্ট। তার পরও এ কথা বলা যায়, আনোয়ার উল আলম শহীদের স্মৃতিচারণামূলক বই একাত্তর আমার শ্রেষ্ঠ সময় আমাদের ইতিহাসের অমূল্য উপকরণ। সব কিছু ছাপিয়ে তাঁর বইটি ইতিহাসের উপাদান হিসেবে গবেষকদের কাজে লাগবে। নতুন প্রজন্মের যাঁরা মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি তাঁরা এই বইটি পড়ে অনেক কিছু জানতে পারবে।
http://www.prothom-alo.com/print/news/64909
 
Reader's Review
Add your own comment
  Quick Find: |A|B|C|D|E|F|G|H|I|J|K|L|M|N|O|P|Q|R|S|T|U|V|W|X|Y|Z|

© 2017 Boi-Mela
83/1 Laboratory Road , Dhaka - 1205, Bangladesh, Voice: +880 2 9131155, E-mail: info@boi-mela.com
1107, N. Forrest Avenue, Kissimmee, Florida - 34741, USA, Fax: +1 407 396 4913